কীভাবে পানি দূষণ রোধ করতে পারি।

ভূমিকা: পানি ধূষন থেকে বিভিন্ন রোগজীবানু দেহে বাসা বাধে। তবে কিছু পদক্ষেপ নিলে পানি দূষন প্রতিরোধে অনেকটাই প্রতিরোধ করা যায়। তাই আমরা নিয়মিত স্থাস্থ্য সেবা মূক বিভিন্ন প্রকারের অনুষ্ঠান দেখে থাকি।

 


 কিন্তু আমরা সেই সকল কাজ করি না। তাই আমরা বিভিন্ন প্রকারের পানি বাহিত রোগে আক্রান্ত হয়ে পড়ি তাই আমরা নিম্নে কিছু পানি বাহিত রোগ থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য টিপস দেওয়া হলো:

যাবা সাপ্লোইয়ের পানি পান করতে পারে না তাদের জন্য

সাপ্লাই পানির ক্ষেত্রে আমাদের ওয়াসার দায়িত্ব এটি ক্লোরিনেটেড ওয়াটার বা আরো যদি নিরাপদ কোনো ব্যস্থা থাকে সেগুলো করে সুপেয়, নিরাপদ একটি পানি পানের ব্যবস্থা করা। এটা হওয়া উচিত। পানি দূষিত হচ্ছে কি না সেই বিষয়ে নিয়মিত পর্যবেক্ষন করা। ওয়াসা বা মিউনিসিপাল করপোরেশন এটি পর্যবেক্ষন করবে। মাঝে মধ্যেই তারা পরীক্ষা করবেন পানিটা নিরাপদ কি না নিশ্চিত করবে এটা নিরাপদ পানি। 

 পানির গুরুত্ব

যে কোন ব্যক্তির সুস্থ্য থাকার জন্য সব চেয়ে বেশি গুরুত্ব পানির উপর। কারন পানি থেকে যে কোন ব্যক্তি ৭০% রোগ হয় এই পানি থেকে। তাই যে কোন ব্যক্তির সুস্থ্য থাকার জন্য পানির ভূমিকা অপরিসীম। তাই আপনার যে সকল ব্যক্তি আনি পান করিবেন সেই সঠিক ভাবে পান করার উপযুক্ত আছে কিনা সেই দেখে পান করিবেন। তাহাতে আপনাদের শরীর সুস্থ্য থাকিবে।

পাঠকের শেষ কথা:

মানুষের জীবনের পানির গুরুত্ব এর শেষ নেই। তাই পানির অপর নাম জীবন রাথা হয়েছে। আমার আর্টিকেলটিতে আপনারা কিভাবে পানি পান করিবেন সেই বিষয় আলোচনা গুলো বুঝতে পেরেছে। আমার আর্টিকেলটি পড়ে আপনারা উপকৃত হয়েছে। ভালো লাগলে আমার পেজটা ফলো দিয়ে রাখুন ধন্যবাদ।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

এই ওয়েবসাইটের নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url